ভিপি বাহার’কে সোনাইমুড়ী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি হিসেবে চায় তৃণমূল আ’লীগ!

0
455

ডেস্ক রিপোর্ট : পুরো নাম মাহফুজুর রহমান,ডাক নাম বাহার।সোনাইমুড়ী উপজেলা ছাড়িয়ে নোয়াখালী জেলায় তিনি ভিপি বাহার নামে পরিচিত।স্নাতক পাশ ভিপি বাহার উপজেলার ভানুয়াই গ্রামে এক সম্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

শিক্ষা ও সংস্কৃতানুরাগী ভিপি বাহার ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে নিজেকে জড়িয়ে নেন।
অহিংস,উদারমনা ও নান্দনিক চারিত্রিক বৈশিষ্ঠগুণে ধর্ম,বর্ণ-গোত্র এবং দল-মত নির্বিশেষে সকলের কাছে তিনি মানবকি স্বত্তার উৎকর্ষিত এক গ্রহণযোগ্য এবং প্রশংসনীয় শুভবোধ সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব।

সোনাইমুড়ী কলেজ থেকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হন।সামাজিক,
সাংস্কৃতিক,আইন শৃঙ্খলা,শিক্ষা ও ক্রীড়াসহ নানানক্ষেত্রে তিনি সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।সাধারণ জনগণ থেকে শুরু করে দলীয় নেতা-কর্মী,স্থানীয় প্রশাসনের কাছে ভিপি বাহার সৎ এবং সুরুচিবান এক অনুকরণীয় আদর্শ হয়ে উঠেছেন।

ভিপি বাহার মাদক ও নারী কেলেংকারী মুক্ত পরিচ্ছন্ন এবং ইতিবাচক রাজনীতির উজ্জল দৃষ্টান্ত।ভদ্রতা এবং বিনয় তাঁর চারিত্রিক মাধুর্য।সন্ত্রাস নির্ভর রাজনীতি তাঁর স্বভাব বিরুদ্ধ।শান্তি,শৃঙ্খলা ও সম্প্রীতি নির্ভর রাজনীতি ও সমাজ বিনির্মাণে গতিময়তা দানের জন্য তিনি দক্ষ যোগ্য।বক্তা হিসেবে শব্দ গ্রন্হনায় শ্রোতাদের মনোযোগ আকর্ষণে দারুন ক্ষমতা রয়েছে তাঁর।

দলীয় আদর্শ ভিত্তিক জনকল্যাণমূলক রাজনীতির উন্নয়ন সুনিশ্চিত করতে প্রশংশনীয় নেতৃত্বগুণ সম্পন্ন এ্যাট্টাকটিভ স্মার্ট জনাব মাহফুজুর রহমান ভিপি বাহার
কে সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে দেখতে চায় এলাকার জনগণ।

এ ব্যাপারে জনাব মাহফুজুর রহমান ভিপি বাহারকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন,পৃথিবীতে যুগে যুগে কিছু মানুষ এসে প্রথমে ইতিহাস সৃষ্টি করেন।তারপর নিজেরাই ইতিহাস হয়ে যান।সালভাদর আলেন্দে,প্যাট্টিস লুমুম্বা,মহাত্মাগান্ধী তেমনই কিছু মানুষের নাম।বাংলাদেশের ভাগ্যাকাশ ফুঁড়ে উদিত হওয়া এমনই এক নাম শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ মানুষ জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান।বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ক্ষুধা-দারিদ্র,ঘুঁষ-দূর্নীতি,মাদক-সন্ত্রাস মুক্ত একটি আধুনিক ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে আসছি।

দলের দুর্দিনে অতন্দ্র প্রহরীর মত বুক ঠুকিয়ে কাজ করেছি,শুরু থেকে অদ্যাবধি নীতি-নৈতিকতার প্রশ্নে কখনও আপোষ করিনি।দলের নেতা-কর্মীদের যথাযথ মূল্যায়ন করার সৎ মানসিকতা পোষন করি।আমি মনে-প্রাণে বিশ্বাস করি -রাজনীতির মূল লক্ষ্য হচ্ছে জনকল্যাণ।আর জন কল্যাণ সাধনের জন্য মানসিক স্বত্বার উৎকর্ষতা অপরিহার্য।কারণ চিন্তার রাজ্যে প্রগতি না এলে,কর্মের রাজ্যে কখনও প্রগতি আসতে পারে না।আমার দীর্ঘকালের রাজনৈতিক সততা এবং কর্মনিষ্ঠতা বিবেচনা করে দলীয় নেতা-কর্মীরা আমাকে সিনিয়র সহ-সভাপতি থেকে সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি করার জন্য যে স্বতঃস্ফুর্ত ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন,তাতে আমি সকলের কাছে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হলে দলকে আরও সুসংগঠিত করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ক্ষুধা-দারিদ্র,ঘুঁষ-দূর্নীতি,মাদক-সন্ত্রাস মুক্ত একটি সমৃদ্ধশালী,উন্নত-আধুনিক ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কাজে সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগ সম্পূর্ণ সততা এবং নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার দৃঢ় অঙ্গিকার ব্যক্ত করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here