এরশাদের শূন্য আসন পূরণের ভোট আজ

0
29
রংপুর-৩ উপনির্বাচনে নগরের পুলিশ লাইনস স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠ থেকে ইভিএম মেশিন ও নির্বাচন সামগ্রী বিভিন্ন সেন্টারে নিয়ে যান নির্বাচনী কর্মকর্তারা।

এম, এন, বি, জাতীয় পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদের শূন্য আসনে আজ শনিবার ভোটগ্রহণ। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ১৭৫টি কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন ৪ লাখ ৪১ হাজার ৫২৪ ভোটার। এদিকে ৭২টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ধরে প্রস্তুতি নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এরই মধ্যে র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি পুরো নির্বাচনী এলাকায় টহল দিচ্ছে ১৮ প্লাটুন বিজিবি। এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জাতীয় পার্টি, বিএনপি, স্বতন্ত্রসহ ছয় প্রার্থী।

এদিকে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরপরই দলগুলোর প্রার্থী নির্ধারণে শুরু হয় নানা নাটকীয়তা। প্রথমে আওয়ামী লীগ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ঘোষণা দিয়ে শরিক জাপাকে চাপের মুখে রাখে। দলের ১৬ মনোনয়নপ্রত্যাশীকে ঢাকায় ডেকে পাঠান সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

মনোনয়ন বোর্ড জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজুকে মনোনয়ন দেয়। দীর্ঘ সময় পর নৌকার প্রার্থী পেয়ে সবার আগে মাঠেও নামেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা। কিন্তু জোটসঙ্গী জাপা জোটগতভাবে নির্বাচন করতে আওয়ামী লীগকে অনুরোধ জানায়। সে অনুযায়ী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে কেন্দ্রের নির্দেশে নেতাকর্মীদের বাধার মুখেই সরে দাঁড়ান আওয়ামী লীগ প্রার্থী রাজু। আর তাতে অনেকটাই নিষ্কণ্টক হয় জাপা।

জাপার প্রার্থী নির্ধারণ নিয়েও হয়েছে নাটকীয়তা। দলের মহানগর সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আহমেদকে মনোনয়ন দেন চেয়ারম্যান জিএম কাদের। এতে খুশি হতে পারেননি কো-চেয়ারম্যান ভাবি রওশন এরশাদ। দলের দ্বন্দ্ব যখন চরমে মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা ভাঙন ঠেকাতে দেবর-ভাবিকে সমঝোতা বৈঠকে বসাতে বাধ্য করেন। সেখানে রংপুর আসনে দলের প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয় এরশাদপুত্র রাহগির আল মাহি এরশাদকে (সাদ)। এতে মহানগর জাপার সভাপতি রসিক মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ও তার অনুসারীরা অসন্তুষ্ট হন। ক্ষুব্ধ হয়ে নিজেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন এরশাদের ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ। তিনিই এখন জাপার প্রধান প্রতিপক্ষ।

অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থীর নির্ধারণ নিয়েও দলের মধ্যে ছিল অসন্তোষ। নেতাকর্মীরা ভেবেছিলেন স্থানীয় কোনো প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। কিন্তু হয়েছে ঠিক উল্টোটা। রিটা রহমানকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় তৃণমূল বিএনপি খুশি হতে পারেনি। দলের নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করতে শেষ মুহূর্তে মাঠে নেমেছিলেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

গতকাল বিকালে জেলা নির্বাচন অফিসে রিটার্নিং কর্মকর্তা জিএম সাহতাব উদ্দিন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের লক্ষ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। বহিরাগতদের নির্বাচনী এলাকা ত্যাগ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ১৮ প্লাটুন বিজিবি, ১৮ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, ৪ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভোটের মাঠে নিয়মিত রয়েছেন। ৭৩টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ (গুরুত্বপূর্ণ) এবং ১০২টি সাধারণ কেন্দ্র চিহ্নিত করা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি তিন হাজার আনসার সদস্যও মোতায়েন রয়েছে।’

র‌্যাব ১৩-এর কমান্ডার রেজা আহমেদ ফেরদৌস বলেন, ‘নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে হেড কোয়ার্টারে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনায় র‌্যাবের হেলিকপ্টার তৈরি রয়েছে। র‌্যাবের পাশাপাশি বিজিবি স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে থাকবে। এ ছাড়া সাদা পোশাকে প্রতিকেন্দ্র এবং নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে র‌্যাবসহ অন্যান্য বাহিনীর সদস্যরা মোতায়েন রয়েছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here